মাটি ও মানুষ

আমাদের চতুষ্পার্শ্বে আজকাল বিচরণ করেন
অনেক পদস্থ গর্দভ যাঁরা অনবরত বাক্যালাপে প্রতুল
কখনো প্রণম্য এবং সর্বদাই যাবতীয় জ্ঞানের আকর
এইসব বিগলিত মানুষেরা এইখানে থাকে

অথচ এই ছোট্ট সীমানার শোণিতাক্ত মাঝখানে
কি বিপুল ভয়াবহ সম্পর্কসমূহ রয়েছে বিরাজমান
কাদায় কঙ্করে আগাছায় শিকড়ে শাখায় পোকা ও মাকড়ে

পারস্পরিক সম্পর্ক ও সংগঠনসমূহ শেষ হয়ে যাবে
যদি একদিন সমস্ত শিকড় শাখা কীটে ও মানুষে
পারমানবিক বিস্ফারে অকস্মাৎ ফেটে পড়ে
এইখানে দগদগে কাদার ভেতরে মাংসের বিবরে

বিস্রস্ত সামাজিক ব্যত্যয়সমূহ ইতঃস্তত চতুর্দিকে
রয়েছে ছড়িয়ে কেন্দ্রের টান নেই সংহতির বড়ই অভাব
কেননা মানুষ পারস্পরিক বিদ্বেষে বিকল
কাঁটাবনে কচুক্ষেতে জোলায় ও হালটে ক্লেদ
যেন এক বৃহৎ ডাষ্টবিন থেকে অবিরত
উপচে পড়ছে পৃথিবীর যাবতীয় নোংরা ও উচ্ছিষ্টসমূহ

মিথ্যা প্রণিপাতে মানুষকে ভজনালয়ে তুষ্ট করে যারা
তাঁরাও আছেন বেশ মানুষকে বারবার ব্যবহার করে।
বিস্তৃত খানকা শরীফে রক্তিম শালুতে শামিয়ানা
সবুজ পতাকা ওড়ে পত পত খাঁ খাঁ রোদ্দুরে খরা ও মড়কে।

অথচ মানুষেরাই বিশ্বাসের প্রয়োজন থাকে
পশু ও পাখিতে তার আয়োজন কখনো থাকে না
একদিন অতএব আশা করা যায় বিশ্বাসে বাস্তবে
দৃশ্বে অদৃশ্যে পোকায় মাকড়ে ও কাঁকরে
চূড়ান্ত কোনো এক বোঝাপড়া হবে মাটি ও মানুষে মিলে
এই বৈষুবিক আকাশের নিচে রক্তসিক্ত লোহিত মৃত্তিকা থেকে
এক বিপুল বিশাল ও শুভ্রতম শাপলার কোরক ফোটাবে।